Archive for December, 2013

যুক্তরাষ্ট্রে উচ্চশিক্ষায় সাধারণের সফলগাথা !

Tuesday, December 31st, 2013

——————————————–

MohoTarima TabasSum

Graduate Teaching Assistant

New Mexico State University

———————————————

শুরুতেই জানিয়ে রাখি আমি মোটেও গুছিয়ে লিখতে বা বলতে পারিনা তাই এই লিখাটা আসলে কতটুকু উপকারে আসবে জানিনা, তবুও লিখছি যদি একজনও উপকৃত হয়! তাছাড়া আমার ঝুলিতে কোন উপদেশ বাণী ও নেই যে সবার সামনে তুলে ধরব, তবে আমি আমার experience টা সবার সাথে খুব সংক্ষেপে share করতে পারি। আশা করি এতে খুব অল্প কিছু হলেও কেউ উপকৃত হবে।

আমার সব সময়ই ইচ্ছা ছিল উচ্চশিক্ষার্থে বাইরে যাওয়ার। কিন্তু কখনই ইউনিভার্সিটি তে আহামরি কোন ভাল স্টুডেন্ট ছিলাম না। ফলাফল খুবই সাধারণ মানের। CGPA ও একেবারেই সাদামাটা। কিন্তু determination ছিল খুবই high!আমার কাছে যেটা সব চেয়ে important সেটা হলো এই determination। বাইরে আসার পুরো process টা খুবি hectic. এই সময় তাই ধৈর্য ধরে লেগে থাকাই হল successful হওয়ার অন্যতম চাবিকাঠি। যাই হোক, নিজের গল্পে ফিরি, কুয়েট থেকে বের হয়েই প্রথমে জিআরই শুরু করলাম। আমি এমনিতে খুব slow motion টাইপ মানুষ, আমার পক্ষে 4 month preparation enough ছিলনা GRE এর জন্য। 4 month বললেও আসলে ভুল হয়, আমার effective GRE preparation ছিল খুবি অল্প সময়ের যেটা এখানে আর উল্লেখ করে লজ্জা পেতে চাই না! পরিক্ষার দশ দিন আগে আমার মনে হল আমার জিআরই দেয়া উচিত হবেনা। কিন্তু জিআরই সেন্টারের এক ভাইয়া অসম্ভব সাহায্য করলেন, সাহস দিলেন। উনার কথাতেই শেষ পর্যন্ত পরীক্ষা দিলাম এবং যথারীতি ফলাফল আবারও যা হবার তাই! মোটেও আশানুরূপ ভাল হইনি। আবারও ভাইয়া সাহস দিলেন, 2013 Fall ধরতে পারব এই বিশ্বাস রাখতে বললেন। আগেই বলেছি আমার result যাই হোক, determination ছিল অসম্ভব দৃঢ়। আমি জানতাম যেকোনো ভাবেই হোক Fall 2013 আমাকে ধরতেই হবে।অ্যাপ্লাই করতে শুরু করলাম, প্রোফেসর ম্যানেজ করার চেষ্টা করলাম, কিন্তু হল না। ৩টা ইউনিভার্সিটি থেকে admission letter এলো। ৩টা থেকে rejected হলাম। এরপর আবারও প্রোফেসর ম্যানেজ করার চেষ্টা করলাম, কিন্তু এবার ভিন্ন উপায়ে। USA এর office time এ প্রোফেসর দেরকে ফোন দেয়া শুরু করলাম। সেই সাথে Department Head কেও! এই উপায়ে RA ম্যানেজ করতে না পারলেও 20hour/week TA ম্যানেজ করে ফেললাম!এই পুরো সময় টাই আমার জন্য ছিল খুবি frustrating এবং একই সাথে challenging। তবে আল্লাহ’র অশেষ রহমতেই যে এত কিছু করা সম্ভব হয়েছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা।

এবার বলি খুবি সাম্প্রতিক সময়ের কথা। আজকে এক চাইনিজ প্রোফেসর এর সাথে কথা বলছিলাম future course/RA plan নিয়ে। উনি অনেক কথা বললেন, নিজের জীবনের কিছু ঘটনা বলে আমাকে inspire করার চেষ্টা করলেন। বললেন, Cornell University তে PhD Qualifying exam দিতে গিয়ে উনি দুইবার ফেইল করেছিলেন এবং Cornell থেকে kicked out হয়েছিলেন! কারন সেই সময় উনার spoken English ছিল খুবি বাজে। এরপর উনি ৩ বছর একটা software company তে জব করে নিজেকে আরও skilled করলেন। এরপর আবারও Cornell এ উনার প্রফেসর এর সহায়তায় Michigan University তে গিয়ে admission নিলেন এবং সেখান থেকেই সফলতার সাথে graduation complete করলেন। এ কথা গুলো আমাকে বলার উদ্দেশ্য হোল যেন কখনও হাল ছেড়ে না দেই। জীবনে অনেক কঠিন সময় আসতে পারে কিন্তু ধৈর্য ধরে টিকে থাকতে পারলেই আসলে সফলতা পাওয়া সম্ভব।

এবার মেয়েদের জন্য একটা সুখবর আছে। প্রোফেসরই আসলে আমাকে এই ব্যাপারে জানালেন। Conversation এর একেবারে শেষে এসে উনি বললেন, The good thing is that you are a girl! USA তে আসলে engineering এ মেয়েদের অংশ গ্রহণ খুবি কম, So এখানকার সবাই চায় মেয়েরা এখানে ভাল করুক, আরও বেশি করে অংশ গ্রহণ করুক। মেয়েদের কে এখানে অনেক বেশি inspire করা হয়। কিন্তু তারমানে এই না যে যোগ্যতা ছাড়াই মেয়েদের কে নিয়ে নিবে! চেষ্টা থাকতে হবে, কাজের আগ্রহ দেখাতে হবে। তবেই ভাল কিছু আশা করা সম্ভব। এত কিছু বলার পর প্রফেসর আমাকে এটাও বলতে ভুললেন না যে ‘BUT DON’T RELY ON IT’. আমি তাকে উত্তর দিলাম I DO NOT!

লিখাটার আর কোন অংশ মনে রাখুন আর না রাখুন প্লীজ একটা কথা মনে রাখবেন ‘হাল ছেড়ে দেয়া যাবে না’!

ভবিষ্যৎ উচ্চশিক্ষায় আগ্রহী সকলের জন্য শুভকামনা।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র: উচ্চ শিক্ষা ও ভুল ধারনা

Sunday, December 29th, 2013

—————————————————–——

Jannatun Naher Tandra

Graduate Research Assistant

South Dakota State University, USA

———————————————————–

লিটন ভাই আমাকে বললেন তোমাকে তো একটা লেখা দিতে হবে । লেখার বিষয়টা হবে উচ্চ শিক্ষা । বেশ ঘাবড়ে গেলাম । উনি বললেন ; তুমি শুধু তোমার গল্পটা বল । আমাদের উদ্দেশ্য হবে উচ্চ শিক্ষা বিষয়ে সবার ভুল টা যেন ভেঙ্গে যায় । বিশেষ করে মেয়েরা; তারা যেন বুঝতে পারে , উচ্চ শিক্ষা মানেই শুধু স্বামীর হাত ধরে বিদেশ যাত্রা নয় ।

তাহলে গল্প টা শুরু করি, আমার জন্ম ও বেড়ে ওঠা বাংলাদেশের এক মফস্বল জেলা শহরে । সেই শহরের সবচেয়ে ভীতু আর ঘরকুনো মেয়ে ছিলাম আমি । তবে পদার্থ আর গণিত ভালবাসতাম বলে প্রকৌশলী হতে  চেয়েছিলাম আর চেয়েছিলাম বাংলাদেশের সবচেয়ে সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়তে । উচ্চ মাধ্যমিকে সেটা সম্ভব হলেও, বিশ্ববিদ্যালয় এ এসে খানিকটা  হোঁচট খেলাম । বিশ্ববিদ্যালয় এ ভর্তির পর দেখেছি যে যেখান থেকেই আসুক, সবাই দুটি দলে ভাগ হয়ে পড়ে । কেও লেখাপড়ায় অতিরিক্ত উৎসাহী, কেও প্রচণ্ড নিরুৎসাহী । আমি  দ্বিতীয়  দলে পড়লাম । প্রথম সেমিস্টার এর ফলাফল আমার নিরুৎসাহকে যেন আরো বাড়িয়ে দিল । স্কুলে কলেজে পদার্থ আর গণিতে কেও কখনও আমাকে হারাতে পারিনি, সেই আমি Economics এ   Backlog খেয়ে একটি ইতিহাস গড়লাম ।

আমার বন্ধুরা সব অসাধারণ ভাল ফলাফল করতে লাগলো । যতখানি ভালবাসা আমার শিক্ষকেরা আমার বন্ধুদেরকে দিয়েছিলেন , তার চেয়ে বেশি অবজ্ঞা আর তাচ্ছিল্য তারা আমাকে দিলেন । আমাদের ক্লাসে একটা মেয়ে ছিল , ওর আর আমার রোল ছিল পাশাপাশি । ওঁই মেয়েটি আমাকে অনেক বুঝিয়েছে , ও আমাকে বলত তোমাকে দেখার আগে আমি তোমার গল্প অনেক শুনেছি , সেই গল্প গুলো তো অন্যরকম ছিল , তুমি কি আবার আগের গল্পে ফিরে যেতে পার না । আমি যেতে পারিনি ; কোথায় যেন হারিয়ে গিয়েছিলাম । Third year এ উঠে আমি অসাধারণ একজন বন্ধু পেলাম, আমার রুমমেট। ঐ আপু পরবর্তীতে KUET  এর শিক্ষিকা হয়েছিলাম । উনি বললেন এই  রাখলাম GRE  এর বই , আজ থেকে তোমার প্রস্তুতি শুরু । এত খটমট লাগল শব্দ গুলো , আমার সোজা জবাব , আমার দ্বারা এসব হবে না । আপুর কথা আচ্ছা ঠিক আছে তুমি সময় নাও ,  CGPA টা ভাল করার চেষ্টা কর । Fourth year এ উঠে একটু  serious হলাম । আমার কৃতকর্মের জন্য আমার শিক্ষকদের  সবসময় ধারনা ছিল আমি  একা কিছু পারি না । জেদ করে একা একা Thesis করলাম ,  Class  এর কোন মেয়ে CCNA  করতে রাজী হল না । একাই CCNA করলাম । 4-2 তে বেশ ভাল একটা  ফল ও করলাম । আমি  1ST Class ও পেয়ে গেলাম । কোত্থেকে যেন  IT তে একটা জব ও হয়ে গেল । কিন্তু  GRE শব্দটা  ভীষণ খটকা দিতে লাগল , আমার দুলাভাইও GRE এর জন্য  Preparation নিচ্ছিলেন , সেই সাথে ঐ আপুও প্রায় বলতেন, কিরে শুরু কর । আমি আচমকা আড়াই মাস পর চাকরি ছেড়ে দিলাম । আমার আম্মু তো রেগে অস্থির । আমার আপুরা  Transfer হয়ে  Chittagong চলে গেল । ভয়ানক একটা দুঃসময় আসল জীবনে । আমার কাছে একটি পয়সা নেই । Living Expense জোগাড় করব কি করে । গোপনে গোপনে  tuition এর চেষ্টা করলাম , সফল হলাম না । আমার আব্বু আমাকে বললেন তুমি যা চাও তাই হবে,  যদি  তুমি সত্তিই  সেটা আমাকে দিতে  পারো । GRE, TOEFL  এর কোন Coaching আমি করিনি । লজ্জা লাগত এই টাকাটা চাইতে । আব্বুর কথা , সবাই দেখি  Coaching করে , তুমি কিছুই করনা , তোমার কী ধারনা তুমি নিজেই  যথেষ্ট । ভিতরে ভিতরে আমার গলা কাপলেও শক্ত হয়ে বললাম যথেষ্ট।  এইসময়ে সবচেয়ে বেশি কষ্ট আম্মুর কাছ থেকে পেয়েছি । একেবারে মেয়ে  ; তারপর অবিবাহিত , একা একা বিদেশ গমনের ইচ্ছা , হবে তো নাই , তারপরও এ ধরনের ইচ্ছা , ধৃষ্টতার একটা সীমা থাকা উচিৎ ।  যাই হোক  GRE ফলাফল বেশ ভালই হলো । সবাই বলল  Quant এ  ৮00/৮00 পেয়েছ, No  চিন্তা । কিন্তু আমি চিন্তিত হয়ে পড়লাম  Low CGPA এর কারনে । শুধু শুধু অর্থ বিনাশ হবে এই ভেবে মাত্র  দুইটি University   তে Apply  করলাম আর  BCS এর জন্য পড়তে লাগলাম , যদি না হয় এই ভয়ে  । BCS এর Preliminary তে টিকে গেলাম , এর মধ্যে একটি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আমার চাকরী ও হয়েছে । তারপর একদিন পাখি হয়ে স্বপ্নের সন্ধানে ঊড়াল দিলাম । আমার চেয়ে বেশী অবাক হল আমার সহপাঠীরা । ও তো কথায় বলে না , ও কী করে একা একা  বিদেশে থাকবে!

আমি পরবর্তীতে যতটুকু জেনেছি , আমার চেয়ে অনেক ভালো Profile এর ছেলেরা আমার University তে  Fund পাইনি । অনেকে Admission ও পাইনি । এর একটা উল্লেখযোগ্য কারন  Research এ মেয়েদেরকে  অনেকসময়  কিছুটা সুবিধা দেওয়া হয় । আমার এই কথার উদ্দেশ্য নিজেকে দুর্বল প্রমাণ করা না । আমি জানি আমি দুর্বল নই । যতোখানি দুর্বলতা রয়ে গেছে তার জন্য আমার আলস্যই একমাত্র দায়ী ।আমরা  মেয়েরা দুর্বল হলে নাফিসা আপু এ Intel  জব পেতেন না , ফারহা আপু আজ USA University  এর  Faculty হতে পারতেন না ।  আরও অনেকে আছেন যাদের কথা জানিও না ।

শুধু আমাদের ভুল ধারনাই আমাদেরকে দুর্বল করে রেখেছে ।  KUET এ থাকতে আমি  জানতাম  Programming এমন একটা বিষয় , যেটা ছেলেরা Solve  করবে  আর মেয়েরা copy, paste করে জমা দিবে । এখন আমি এখানে অনেকের চেয়ে ভালো Programming পারি । নিজের প্রশংসা আরেকটু করি । আমাদের  Course Project এ  Additional একটা   Part ছিল । আমিই  class এর একমাত্র ব্যক্তি যে এটা  solve করতে পেরেছিল । আশা রাখছি খুব তাড়াতাড়ি একটা  paper বের করব  এর উপর।

আমার এই দীর্ঘ গল্পের উদ্দেশ্য আমরা যারা শূন্যে পড়ে আছি , আমরা যেন বুঝি , আমাদের একটু খানি চেষ্টাই জীবনটা ধন্য করে দিতে পারে ।  আর আমরা তোমাদেরকে খুব  Miss করি এখানে । আসো  উচ্চ শিক্ষা এর ক্ষেত্রে  BUET, KUET Ratio টা  1:1 করে ফেলি ।  উচ্চ শিক্ষা বিষয়ে যে কারো কাছে জানতে পারো । রায়হান ভাই, লিটন ভাই , রিয়াদ ভাই  যে কারো কাছে ।

আমি অনুরোধ করব কেও যদি  জানেন , যেমন কিছু বিষয়ঃ

1) At which time the GRE preparation should be started and the materials for GRE?

2) How to select Universities?

3) How to email professors?

4) How to write SOP?

5) About the living expenses of USA?

6) How to manage financially, In case of partial fund or without fund?

7) The total amount of money need to spend in case of full fund.

8) How people can bring his spouse and what are the things he should follow and the expenses for that?

আমি এগুলো খোঁজার Try  করেছি , কেন জানি পেলাম না ।এক জায়গায় থাকলে সবার সুবিধা হয় । এই  বিষয়গুলা   KUET Higher Study  তে  Upload করা যেতে পারে । আমরা সবসময় চেষ্টা করি  সবার সব প্রশ্নের উত্তর দিতে । সময়ের অভাবে অতো বিস্তারিত বলা সম্ভব হয়  না । ছেলেমেয়েরা কষ্ট পায় , ভুল বোঝে , মন খারাপ করে আগ্রহ হারিয়ে ফেলে ।

আগ্রহ হারিও না তোমরা ।  ধৈর্য  রাখো । USA তোমাদেরকে welcome করার জন্য  সাগ্রহে wait করছে।

যে  খেতে চাই বড় মাছের বড় একটা মাথা ,

জেনে রেখো সেই পায় বেশী কাঁটার ব্যথা ।

তন্দ্রা

KUET এর প্রাক্তন শিক্ষার্থী, যুক্তরাষ্ট্র থেকে